দাঁত ব্যথা দূরে ঘরোয়া উপায়

মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট ২০১৭ ১৭:৫৩ ঘণ্টা

দাঁত ব্যথা আমাদের কমবেশি হয় সবারই। দাঁত ব্যথা একটি প্রচলিত সমস্যা। যেহেতু এই ব্যথা মূলত রাতের দিকে বাড়ে, তাই রাতেই ওষুধ বা চিকিৎসক পাওয়া মুশকিল হয়ে যায়। অথচ ঘরের মধ্যে হাতের কাছেই থাকে এমন কিছু টোটকা, যা মুক্তি দিতে পারে দাঁতব্যথা থেকে। 

১. গোলমরিচ ও লবণ: গোলমরিচের মধ্যে লবণ মিশিয়ে ব্যবহার করলে ব্যথা কমতে অনেকটা সাহায্য হয়। এ দুটির মধ্যেই আছে ব্যাকটেরিয়ারোধী, প্রদাহরোধী ও অ্যানালজেসিক উপাদান। সমপরিমাণ গোলমরিচ ও লবণ নিন। এর মধ্যে কয়েক ফোঁটা পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। আক্রান্ত দাঁতে সরাসরি পেস্ট লাগান এবং কয়েক মিনিট রাখুন। কয়েক দিন নিয়মিত এটি করুন।

২. রসুন: দাঁতের ব্যথা শুরু হলেই এক কোয়া রসুন চিবোতে শুরু করুন। রসুনের রসে এমন কিছু উপাদান থাকে, যা যে কোনোরকম প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে। এতে দাঁতের ব্যথাও নিমেষে কমে যাবে। একটি কোয়ায় কাজ না হলে দু’টি কোয়া থেঁতো করে ফেলে পেস্ট বানিয়ে ফেলুন। সঙ্গে মেশান অল্প নুন। পেস্টটা ভালো করে দাঁতের ওপর লাগিয়ে দিন।
 
৩. লবঙ্গ: লবঙ্গের রস দাঁতে ব্যথার অব্যর্থ ওষুধ। লবঙ্গের তেলও তুলায় ভিজিয়ে দাঁতের গোড়ায় রাখা যেতে পারে। সেটা হাতের কাছে না পাওয়া গেলে কাঁচা লবঙ্গও ভাল কাজ দেয়।

৪. পেঁয়াজ: দাঁতের ব্যথা কমাতে পেঁয়াজও খুব উপকারী। অল্প পরিমাণ পেঁয়াজ চিবিয়ে নিতে পারেন। কিংবা পরিমাণ মতো পেঁয়াজ থেঁতো করে রসটা সংগ্রহ করে নিন। তারপর সেই রসটা দাঁতের ওপর ধীরে ধীরে লাগিয়ে দিন। 

৫. পেয়ারা পাতা: দাঁতে ব্যথা কমানোর সবচেয়ে জনপ্রিয় টোটকার একটি। পেয়ারা পাতায় থাকে অ্যানালজেসিকস নামে একটি উপাদান। সেটা দাঁতের ফাঁকে জমে থাকা ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াগুলিকে মেরে ফেলে।

৬. লবণ ও গরম পানি: এক গ্লাস গরম পানিতে আধা চা চামচ লবণ মেশান। এটি দিয়ে কুলি করুন, ফোলা ও প্রদাহ কমাতে কাজ করবে; ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গে লড়াই করে ব্যথা কমাতে কাজে দেবে

We use cookies to improve our website. By continuing to use this website, you are giving consent to cookies being used. More details…