যেভাবে এলো 'ভ্যালেন্টাইন'স ডে'

বুধবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ২৩:২২ ঘণ্টা

ভালবাসার জন্য কি বিশেষ কোনও দিবসের প্রয়োজন হয়? প্রেমিকার খোঁপায় ফুল গুঁজে দিতে কি ১৪ ফেব্রুয়ারির জন্য অপেক্ষা করতে হয়? প্রিয় মানুষটির সঙ্গে দুদণ্ড কাটানোর ব্যাকুলতা তো সব সময়ই থাকে। যে ভালোবাসা ছাড়া দুনিয়া আন্ধার সেই ভালোবাসার দিনটিকে আমরা বলি ‘ভ্যালেন্টাইন’স ডে’। কিভাবে এলো এই দিনটি আমাদের অনেকের মধ্যেই এ নিয়ে ধোঁয়াশা আছে। চলুন পাঠক 'ভ্যালেন্টাইন'স ডে'র গোড়ার কথা জেনে নিই।

'ভ্যালেন্টাইন'স ডে'র উৎপত্তি নিয়ে অনেক কথাই প্রচলিত আছে। নানা জনে নানাভাবে এই দিনটির ব্যাখ্যা দিয়ে থাকি। বলা হয়ে থাকে, এক খ্রিষ্টান যাজক ও চিকিৎসক সেইন্ট ভ্যালেন্টাইনের নামে দিনটির নাম 'ভ্যালেন্টাইন'স ডে' রাখা হয়েছে। ২৭০ খ্রিস্টাব্দের ১৪ ফেব্রুয়ারি; খ্রিষ্টানবিরোধী রোমান সম্রাট গথিকাস আহত সেনাদের চিকিৎসার অপরাধে সেইন্ট ভ্যালেন্টাইনকে প্রাণদণ্ড দেন। মৃত্যুর আগে ফাদার ভ্যালেন্টাইন তার আদরের একমাত্র মেয়েকে একটি ছোট্ট চিঠি লেখেন, যেখানে তিনি নাম সই করেছিলেন 'ফ্রম ইউর ভ্যালেন্টাইন'। সেইন্ট ভ্যালেন্টাইনের মেয়ে ও তার প্রেমিক মিলে পরের বছর থেকে বাবার মৃত্যুর দিনটিকে 'ভ্যালেন্টাইন'ম ডে' হিসেবে পালন করা শুরু করেন। তবে ভিন্ন মতে, সেইন্ট ভ্যালেন্টাইন একজনকে ভালোবেসেছিলেন। আর চিঠিটি লিখেছিলেন তার কাছেই।

আরেক ইতিহাস থেকে জানা যায়, প্রতিবছর রোমানরা ১৪ ফেব্রুয়ারি পালন করত 'জুনো' উৎসব। রোমান পুরানের বিয়ে ও সন্তানের দেবি জুনোর নামানুসারে এর নামকরণ। এ দিন অবিবাহিত তরুণরা কাগজে নাম লিখে লটারির মাধ্যমে তাদের নাচের সঙ্গীকে বেছে নিত। ৪০০ খ্রিষ্টাব্দের দিকে রোমানরা যখন খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীতে পরিণত হয় তখন 'জুনো' উৎসব আর সেইন্ট ভ্যালেন্টাইনের আত্মত্যাগের দিনটিকে একই সূত্রে গেঁথে ১৪ ফেব্রুয়ারি 'ভ্যালেন্টাইন'স ডে' হিসেবে উদযাপন শুরু হয়। কালক্রমে এটি সমগ্র ইউরোপ ও সেখান থেকে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।



আবার অন্য একটি ইতিহাস থেকে জানা যায়, ২৬৯ সালে ইতালির রোম নগরীতে সেইন্ট ভ্যালেন্টাইন নামে একজন খ্রিষ্টান পাদ্রী ও চিকিৎসক ছিলেন। ধর্ম প্রচারের অভিযোগে তৎকালীন রোমান সম্রাট দ্বিতীয় ক্রাডিয়াস তাকে বন্দি করেন। কারণ তখন সাম্রাজ্যে খ্রিস্টান ধর্ম প্রচার নিষিদ্ধ ছিল। বন্দি অবস্থায় তিনি একজন কারারক্ষীর দৃষ্টিহীন মেয়েকে চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করে তোলেন। সেইন্ট ভ্যালেন্টাইনের জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে রাজা তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন। সেই দিন ১৪ ফেব্রুয়ারি ছিল। এরপর ৪৯৬ সালে পোপ সেইন্ট জেলাসিউও প্রথম জুলিয়াস ভ্যালেন্টাইনের স্মরণে ১৪ ফেব্রুয়ারিকে 'ভ্যালেন্টাইন'স ডে' ঘোষণা করেন।

বাংলাদেশে নব্বই এর দশক থেকে 'ভ্যালেন্টাইন'স ডে' উদযাপন শুরু হয়। বর্তমানে দিনটি পালনে জনপ্রিয়তা বেড়েছে। এখন গ্রামগঞ্জেও 'ভ্যালেন্টাইন'স ডে'র ছায়া পড়েছে। এ দিনটিকে ঘিরে তরুণ-তরুণীরা মনের মানুষের সঙ্গে মিলিত হয়। নির্জনে নিরিবিলি ভালোবাসার কথা ভাগাভাগি করে। প্রিয়তমার হাত ধরে প্রেমিক মাতে তারুণ্যের অনাবিল উচ্ছ্বাসে।

We use cookies to improve our website. By continuing to use this website, you are giving consent to cookies being used. More details…