নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা: কাদের

বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮ ১৫:৪৭ ঘণ্টা

নারায়ণগঞ্জের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ও মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ও দলীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আমি দুই জনকেই (আইভী, শামীম ওসমান) ফোন করেছি। যেন এই ঘটনা বন্ধ করা হয়। নারায়ণগঞ্জের ঘটনার তদন্ত চলছে, যারাই জনসম্মুখে পার্টির ভাবমূর্তি ভায়োলেন্সের মাধ্যমে নষ্ট করেছে, যারাই দোষী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবো। যারাই এ ব্যাপারে অপরাধী হোক তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বুধবার (১৭ জানুয়ারি) সকালে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। 

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাকে যখন নারায়ণগঞ্জের পুলিশের এসপি ঘটনা জানান তখন আমি দুইজনকেই (সেলিনা হায়াৎ আইভী ও শামীম ওসমান) ফোন করে বলেছি অনভিপ্রেত ঘটনা স্টপ করতে। আমরা দুই পক্ষকেই ডাকবো এবং বিষয়টি খতিয়ে দেখবো। আমি শামীম ওসমানকে ফোন করবো কি মারামারি করতে? আমি মারামারি বন্ধ করতেই ফোন করেছি। এই প্রাক্টিসটা বন্ধ করতে হবে। আজ সকালেও দুইজনের সাথে আমার কথা হয়েছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘ওখানে যদি অস্ত্রের ব্যবহার হয় এবং গোলাগুলি হয় তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছি। তিনি খোঁজখবর নিচ্ছেন তদন্ত করে এ বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আজ তাদের দুইজনকেই ডেকেছেন বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ বড় দল। এখানে সমস্যাতো মাঝে মাঝে হয়। তাদের এ সমস্যায় সিটি করপোরেশনের শান্তিপূর্ণ পরিবেশও নষ্ট করেনি, আমাদের বিজয়েও বাধা হয়নি, ভোট ব্যাংকেরও ক্ষতি হয়নি। তবে যে ঘটনা ঘটেছে তা অনভিপ্রেত এবং অনাকাঙ্খিত। দলের অভ্যন্তরীণ কলহ জনসম্মুখে আসা খুবই খারাপ দৃষ্টান্ত হয়েছে। এ বিষয়ে আমার প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা হয়েছে।’

ঢাকা মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি খোঁজখবর নিচ্ছি। এর সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।  ’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাঁপা, কার্যনির্বাহী সদস্য এসএম কামাল হোসেন, নগর দক্ষিণের সভাপতি আবুল হাসনাত, সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, নগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান প্রমুখ।

We use cookies to improve our website. By continuing to use this website, you are giving consent to cookies being used. More details…