Logo
ব্রেকিং নিউজ :
Wellcome to our website...

বিএডিসির বীজ আলুতে কৃষকের অনিহা

তুষার আহাম্মেদ
আপডেট সময় : Saturday, November 21, 2020

5

একদিকে আবাদে ফলন কম, অপরদিকে গতবছরের চেয়ে দাম বৃদ্ধি, তার উপরে উৎপাদিত ফসলের মান খারাপের অভিযোগ। এমনই রিস্থিতে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) বীজ আলু আবাদে মুন্সীগঞ্জের কৃষকদের মাঝে অনিহা দেখা দিয়েছে। লোকসান এড়াতে কৃষকদের সংগৃহিত বীজ ও দ্বিগুন বেশি দামে বিদেশী বীজ আলু আবাদেই ঝুঁকছে কৃষকরা। এতে কমেছে বিএডিসির আলু বিক্রি। জেলায় এবছর বিএডিসির ১হাজার ৮০৫ মেট্রিক বীজ বরাদ্ধ রয়েছে। গত ১২নভেম্বর থেকে শুরু হয়ে গত ৬দিনে ডিলারদের কাছে বিতরণ করা হয়েছে মাত্র ১শ ৫০মেট্রিক টন বীজ। বিতরণকৃত বীজের অধিকাংশই এখনো অবিক্রিত রয়েছে বলে জানিয়েছে ডিলাররা।

ডিলার ও কৃষক সূত্রে জানাযায়, গতবছর বিএডিসির বীজ আলুর দাম ৩০টাকা কম থাকলে এবছর খুচরা মূল্য ৪৫-৪৬টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। আর কৃষকদের উৎপাদিত আলু থেকে সংগ্রহীত বীজ আলু ৪০থেকে ৪৮টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে বিদেশি আলু এগ্রোকো, এগ্রোপ্লান সহ বিভিন্ন জাতের বীজ ৮০থেকে ১২০টাকা মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। অর্থাৎ কৃষদের সংগৃহীত বীজ ও বিএডিসির বীজে দাম কাছাকাছি থাকলেও বিদেশি বীজের দাম বিস্তর পার্থক্য।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে, এবছর জেলায় ৩৮হাজার ৫০০হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। আর আবাদের মৌসুম শুরু হওয়া জেলা জুড়ে এরমধ্যেই আবাদ শুরু করেছে কৃষকরা।

মুন্সীগঞ্জের খাসকান্দি এলাকার কৃষক সুমন জানায়, বিএডিসির বীজ থেকে উৎপাদিত আলুর গায়ে ক্ষত, দাউদা মত সমস্যা দেখা দেয়, গোলাতে রাখলে পঁচেও নষ্ট হয়। তাই বাজারে আলু দাম কমে যায়। গৃহস্থের কাছ থেকে বীজ কিনে লাগিয়েছি এবছর। ৫০কেজির বস্তা ২হাজার থেকে ২৪শ টাকা পরেছে।

আরেক কৃষক আকবর আলি বলেন, হল্যান্ডের ৫০কেজি বীজে ২৫মণ আলু উৎপাদন হয়। সেখানে বিএডিসির আলু হয় ২২-২৩মণ। উৎপাদিত আলু থেকে পরবর্তীতে বীজ সংগ্রহে ফসলের পরিমান আরো কমে আসে। আগের মত বিএডিসির আলুর মান নেই। সূত্রেযানায়, জেলায় বিএডিসির অনুমোদিত ডিলারের সংখ্যা ১৭৪জন। যাদের প্রত্যাককে ৫টণ করে আলু বরাদ্ধ রয়েছে।

বিএডিসির অনুমোদিত ডিলার আহমেদ উল্লাহ জানান, ২৫বছর যাবত এই কাজ করছি। আগে বিএডিসির আলুর প্রতি মানুষের আস্থা ছিলো বেশি। কিন্তু এখন কৃষকরা হল্যান্ড থেকে আমদানিকৃত বীজ আলু বেশি আবাদ করছে। একবার আবাদ করতে উৎপাদিত আলুর বীজ সংরক্ষণ করে সেগুলো আবার আবাদ করছে। চাহিদা অনেক কমেছে। ৫টন আলু বরাদ্ধ পেয়েছি, এখন পর্যন্ত ২টন বিক্রি করতে পেরেছি।

জেলা বীজ ও সার ডিলার এসোসিয়েশনের সভাপতি আহসানুল্লাহ দিদার জানান, এবছর বিএডিসির পর্যাপ্ত আলুর বীজ আছে, তবে চাহিদা
নেই তেমন। কেউ যদি ক্রয় করতে চায় আমার ঠিকানা দিয়ে দিবেন। ৫টন বরাদ্ধ পেয়েছি। এখনো কোল্ডস্টোরেজ থেকে উঠিয়ে আনিনি, বিক্রিও করিনি। কৃষকরা আগের মত আলু নিতে চাচ্ছে না। এতে ডিলাররও ক্ষতির মুখে পরছে।

মুন্সীগঞ্জ বিএডিসি’র সিনিয়র সহকারী পরিচালক (বীজ বিপনন) কৃষিবিদ মোঃ রুহুল কবির জানান, সারাদেশে যতখানি বীজের যোগান প্রয়োজন তার ৬-৭শতাংশ বিএডিসি দিতে পারে। গত ১২তারিখ মুন্সীগঞ্জে বিতরণ শুরু হয়েছে। মুন্সীগঞ্জের চাষীদের মাঝে বিদেশি বীজ আবাদের প্রবণতা বেশি৷ সারা দেশেই বিএডিসির কার্যক্রম চলে উত্তরবঙ্গে চাহিদা আবার বেশি। গতবছরের চেয়ে দাম বৃদ্ধির বিষয়ে তিনি বলেন, এবছর খাবার আলুর দাম ৪০টাকার উপরে। যদি বীজ আলুর দাম খাবার আলুর চেয়ে কম হয় তবে বীজ আলুকেই খাবার আলু হিসাবে জন সাধারণ ব্যবহার করবে। এতে বীজের সংকট দেখা দিতে পারে তাই গতবছর থেকে দাম বেশি নির্ধারণ করা হয়।


এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
0Shares
0Shares