Logo
ব্রেকিং নিউজ :
Wellcome to our website...

মুন্সীগঞ্জে ককটেল হামলায় ৮০ বছরের বৃদ্ধাসহ আহত ৫

এম এম রহমান 2936 বার
আপডেট সময় : Wednesday, May 6, 2020

1

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরাঞ্চলের খাসকান্দি গ্রামে ককটেল হামলায় ৮০ বছরের বৃদ্ধাসহ গুরুত্বর আহত হয়েছে ৫ জন। বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সদর উপজেলার চরাঞ্চলের চরকেওয়ার ইউনিয়নের খাসকান্দি গ্রামে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে। প্রতিপক্ষের নিক্ষেপ করা ককটেলের স্পিল্টারের আঘাতে গুরুত্বর হয়েছে, ১.আফছান বেগম (৮০), ২. প্রতিবন্দী আসাদ হাওলাদার (৩৫), ৩.আবুল হাওলাদার (৫০) ৪. আলম হাওলাদার (২৫), ৫. রবিন (১৮)। গুরুত্বর আহত অবস্থায় এদেরকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সুত্র জানায়, সম্প্রতি ফসলি জমির উপর দিয়ে ট্রলি চালানোর ঘটনাকে কেন্দ্র করে খাসকান্দি ও ছোট মোল্লাকান্দি গ্রামের দু”গ্রুপের মধ্যে পাল্পাপাল্টি হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ এনে খাসকান্দি গ্রামের আহাম্মদ হাওলাদার, মজিবর হাওলাদার, নাছির বেপারী,মিনার হোসেন গংদের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ থানায় বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়ের করেন সেলিম হাওলাদার। এর পর থেকে খাসকান্দি গ্রামে দুটি পক্ষ বিভক্ত হয়ে পড়ে।

আহত আলম হাওলাদার জানান, বেশ কয়েকদিন ধরে আহাম্মদ, মিনার গংরা এলাকায় ককটেল বিস্ফোরন ঘটিয়ে ত্রাস সৃষ্টির চেষ্টা করেছে এমনটা দাবি করে তিনি বলেন, গতকাল রাত থেকে আহাম্মদ গংরা ককটেল বিস্ফোরন ঘটিয়ে ত্রাশ সৃষ্টি করে। এলাকায় মিটিং করে বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা করে। পুলিশকে জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাদেরকে ধাওয়া দিলে তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এ সময় পুলিশ বিস্ফোরক মামলার আসামী আকবর হাওলাদার এবং মোস্তফাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এরপর আহাম্মদ নজির গংরা পার্শবর্তী মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের চৈতারচর থেকে বিপুল পরিমান ককটেল ও ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের ্এনে পূনরায় হামলা চালায় বলেও জানান তিনি।

হামলার বিষয়টি অস্বীকার করে মোবাইল ফোনে আহাম্মদ হাওলাদার বলেন, আমার ভাই বাজার থেকে বাড়ী ফেরার পথে তাকে এবং আমার চাচাতো ভাইকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। তারা পাল্টা হামলা করে আমাদেরকে গ্রামছাড়া করে বাড়ী ঘর ভাংচুর চালায়। ককটেলের আঘাতে ৮০ বছরের বৃদ্ধসহ ৫ জন কিভাবে আহত হলো জানতে চাইলে তিনি বলেন এটা আমার জানা নেই। এ ঘটনায় আমার কোন লোক আহত হয়নি । প্রতিপক্ষরা আমাদের উপর হামলা করে গ্রামছাড়া করে দেয়। তারা আমার পক্ষের লোকদের অনেকগুলো বাড়ীতে ভাংচুর করেছে। আপনিসহ আপনার গ্রুপের ৭ জনের নামে তো মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় একটি বিস্ফোরক মামলা চলমান আছে। তারপরও কেন করোনার আতংকের মধ্যে এই ককটেল বিস্ফোরন ঘটান ? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা মামলা করতে চাইছিলাম আপোষ করবে বলে করিনি কিন্তু ওরা আমাদের নামে মামলা করেছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিচুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে। আহাম্মদ হাওলাদার, নজির গংদের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা চলমান আছে বলেও জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
0Shares
0Shares