Logo
ব্রেকিং নিউজ :
Wellcome to our website...

মুন্সীগঞ্জে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেওয়ার শঙ্কা

অনলাইন ডেস্ক 318 বার
আপডেট সময় : Wednesday, May 6, 2020

1

মুন্সীগঞ্জে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। ইতিমধ্যে জেলার করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দুই শতাধিক ছাড়িয়েছে। নতুন করে জেলায় সাতজন শনাক্ত হয়েছেন। যাঁরা নতুন আক্রান্ত হচ্ছেন, তাঁদের মধ্যে কোনো লক্ষণ নেই। এ ছাড়া অনেকেই করোনার উপসর্গ লুকিয়ে হাসপাতালগুলোয় চিকিৎসা নিতে আসছেন। তাই এ জেলায় করোনা ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন চিকিৎসকেরা।

বুধবার বেলা একটার দিকে নতুন করে সাতজন আক্রান্তের তথ্য নিশ্চিত করেছেন মুন্সীগঞ্জের সিভিল সার্জন আবুল কালাম আজাদ। তিনি জানান, ৪ মে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব প্রিভেন্টিভ অ্যান্ড সোশ্যাল মেডিসিনের (নিপসম) ল্যাবরেটরিতে করোনা শনাক্তের পরীক্ষার জন্য ৭২ জনের নমুনা পাঠানো হয়। সেখান থেকে পাঠানো প্রতিবেদনে ৭ জনের করোনা ‘পজিটিভ’ উল্লেখ করা হয়েছে।

সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, নতুন আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সদর উপজেলার ৪ জন, লৌহজংয়ের ১ জন ও শ্রীনগর উপজেলার ২ জন রয়েছেন। এর মধ্যে সদর উপজেলায় গতকাল মঙ্গলবার মারা যাওয়া বাগেশ্বর কমিউনিটি ক্লিনিকের কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার আশরাফ-উল-ইসলামও (৩৬) রয়েছেন।

সিভিল সার্জন বলেন, নমুনার ফলাফল আসতে দেরি হচ্ছে। নতুন রোগীরা লক্ষণ ছাড়াই আক্রান্ত হচ্ছেন। এ ছাড়া করোনার উপসর্গ লুকিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন অনেক রোগী। এ কারণে মুন্সিগঞ্জে অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। পুরোনোদের সংস্পর্শে এসে নতুন রোগীরা আক্রান্ত হচ্ছেন। দিন দিন করোনার আরও নতুন নতুন উপসর্গ দেখা যাচ্ছে। কারও মধ্যে সামান্য পরিমাণে উপসর্গ দেখা দিলে অথবা সন্দেহ হলে চিকিৎসকের পরামর্শসহ করোনা পরীক্ষা করাতে হবে। নমুনা দেওয়ার পাশাপাশি আইসোলেশনে থাকতে হবে। রোগীর স্বজনদেরও সচেতন হতে হবে।

সিভিল সার্জন মনে করেন, করোনার পরীক্ষা বেশি করা গেলে এবং নিয়মিত ফলাফল পেলে রোগীদের সম্পর্কে বেশি ধারণা পাওয়া যাবে। সে ক্ষেত্রে মানুষকে সাবধান থাকতে হবে। এ জন্য মুন্সীগঞ্জে সরকারি অথবা বেসরকারিভাবে নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে পারলে সবচেয়ে ভালো হতো।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জেলায় এ পর্যন্ত মোট ২০৪ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। আজ ৮২ জনসহ জেলার মোট ১ হাজার ২০৫ জনের নমুনা ল্যাবে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। ইতিমধ্যে ৯৪০ জনের নমুনার ফল পাওয়া গেছে। এ পর্যন্ত সদর উপজেলায় ৮৭ জন, টঙ্গিবাড়ী উপজেলায় ১২, সিরাজদিখান উপজেলায় ৪৪, শ্রীনগর উপজেলায় ২৫ জন, লৌহজং উপজেলায় ১৭ জন এবং গজারিয়া উপজেলায় ১৯ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। এর মধ্যে সদরে পাঁচজন, টঙ্গিবাড়ীতে দুজন ও শ্রীনগর উপজেলায় একজন করোনা শনাক্ত হওয়ার আগেই মারা যান। তবে লৌহজং উপজেলায় দুজন করোনা নিয়ে ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এখন পর্যন্ত সিরাজদিখান উপজেলায় একই পরিবারের দুজন, শ্রীনগর উপজেলায় একজন এবং সদর উপজেলায় একজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

-প্রথম আলো


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
0Shares
0Shares