Logo
ব্রেকিং নিউজ :
Wellcome to our website...

মুন্সীগঞ্জে অবাধে পুকুর ভরাট চলছেই

ডেইলি মুন্সীগঞ্জ ডেস্ক 102 বার
আপডেট সময় : Wednesday, July 14, 2021
মুন্সীগঞ্জ অবাধে পুকুর ভরাট চলছেই
মুন্সীগঞ্জ অবাধে পুকুর ভরাট চলছেই

5

দেশজুড়েই জলাভূমি সংরক্ষণের আশানুরূপ কোনো উদ্যোগ নেই। বরং সরকারি বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে সারাদেশেই প্রশাসনের সামনে অবাধে পুকুরসহ জলাভূমি ভরাট করে ঘরবাড়ি-কলকারখানাসহ নানা অবকাঠামো তৈরি হচ্ছে। কোথাও কোথাও জলাশয় ভরাট করে সরকারি অবকাঠামোও গড়ে উঠেছে। মূলত আইনের ফাঁকফোকর এবং প্রয়োগের অভাবেই প্রকৃতির আধার জলাভূমি মুন্সীগঞ্জসহ সারাদেশে কমছে। ফলে কমছে পানির স্তর। তাতে ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ছে পরিবেশ।

সূত্র জানায়, প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন ২০০০-এ বলা হয়েছে, নদী, খাল-বিল, হাওর, দিঘি, ঝর্ণা, বন্যাপ্রবাহ এলাকা, বৃষ্টির পানি ধারণ করে এমন সব এলাকা প্রাকৃতিক জলাধার, জলাশয় বা জলাভূমি হিসেবে পরিগণিত হবে। গত বছরের ২২ অক্টোবর ব্যক্তি মালিকানাধীন পুকুরকেও প্রাকৃতিক জলাধারের সংজ্ঞাভুক্ত করে গেজেট প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে যে, জলাধার কোনোভাবেই ভরাট করা যাবে না।

প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন-২০০০ অনুযায়ী কোনো পুকুর, জলাশয়, নদী, খাল ইত্যাদি ভরাট করা বেআইনি। এই বিধান লঙ্ঘন করলে আইনের ৮ ও ১২ ধারা অনুযায়ী ৫ বছরের কারাদ বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদ অথবা উভয় দ-ে দ-িত হতে পারে। একই সঙ্গে পরিবেশ সংরক্ষণ আইন (২০১০ সালে সংশোধিত) অনুযায়ী, যে কোনো ধরনের জলাশয় ভরাট করাও নিষিদ্ধ। কিন্তু আইন না মেনে চলছেই জলাভূমি ভরাট। শহর কিংবা গ্রাম সর্বত্রই একই চিত্র। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোনো কোনো ক্ষেত্রে আইনের প্রয়োগ হচ্ছে শিথিল এবং অনেক ক্ষেত্রে আইন প্রয়োগই হচ্ছে না।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান জানান, মাস্টারপ্ল্যান এবং আইন ভেঙে জলাশয় ভরাট হচ্ছে। সরকার আইনের যথাযথ প্রয়োগ করছে না। জলাশয় ভরাটের ব্যাপারে যার যেটা মনে চাচ্ছে তাই করছে। এমনি ড্যাপের আওতায় চিহ্নিত জলাশয়গুলো যারা ভরাট করেছে, তাদের শাস্তির মুখোমুখি করা হয়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
0Shares
0Shares