Logo
ব্রেকিং নিউজ :
Wellcome to our website...

রিকাবীবাজারে সাঁটা টোকা দিলেই খুলে যায় দোকান

সুজন বেপারী
আপডেট সময় : Tuesday, May 19, 2020

1

মুন্সীগঞ্জে আইনসৃংঙ্খলা বাহিনীর কড়া নজরদারির মধ্যেও থেমে নেই সাধারন মানুষের কেনাকাটা। দোকানের সাটার নামানো থাকলেও টোকা দেওয়ার সাথে সাথে খুলে দেওয়া হয় সাটার।

সদর উপজেলার রিকাবী বাজার হাট বাজারগুলোতে বেড়েই চলছে ক্রেতাদের ভিড়। সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে গাদাগাদি করে গায়ে গা ঘেঁষে কেনাকাটা করছে ক্রেতারা।

এ সময় দোকানদার এবং ক্রেতারা দোকানখোলা এবং পন্য কেনার নানা অযুহাত। দোকানিরা অনেকেই বলছে দোকান পরিস্কার করার জন্য খুলেছি। কেউবা বলছে সবাই খুলেছে তাই খুলছি । আবার কেউ কেউ বলছে পেটের দায়ে খুলেছি। এভাবে গাদাগাদি করে দোকান খোলা রেখে বেচা কেনা করলে সংক্রামন ছড়াতে পারে এটা তারা বুঝতেই চাচ্ছে না।
স্থানীয় সুশীল সমাজ মনে করছেন অসচেতন মানুষগুলোকে সচেতন করতে হলে প্রশাসনকে আরো কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।
দোকানীরা কিছুতেই করোনা বিষয়ে সরকারের সতর্কতামূলক স্বাস্থ্যবিধিকে গুরুত্ব দিচ্ছে না। ফলে বাজারগুলো করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

পুলিশের গাড়ি বা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসছে শোনা মাত্র দোকানের গেট বন্ধ করা হয়। কিছু সময় পরে পুলিশের গাড়ি চলে যাওয়া বা মোবাইল কোর্ট স্থান ত্যাগ করা মাত্র আবার দোকানের সাঁটার অর্ধেক খোলা হয়।
মীরকাদিমের স্থাণীয় লোকজনে বলেন- মুন্সীগঞ্জ পৌর মেয়র হাজী মোঃ ফয়সাল বিপ্লব প্রশাসনের সাথে এক হয়ে যেভাবে শহরকে করোনা ঝুঁকি মুক্ত রেখেছে আমাদের মীরকাদিম পৌর মেয়র মোঃ শহিদুল ইসলাম শাহিন করোনা ঝুঁকি এড়াতে মার্কেট মালিকদের সচেতন করেনি এইজন্য আগামী নির্বাচনে আমরা এমন একজন মেয়র চাই যে আমাদের সুখ দুঃখ বুঝবে।

এই বিষয় সদরের উপজেলার মীরকাদিমের রিকাবী বাজার ব্যবসায়ী সমিতি সভাপতি – মোহাম্মদ কামাল হোসাইন বলেন -যারা সকালে দোকান দু’চারজনে খুললে তাদের দেখাদেখি আর একজনে খুলে, আমি ওদের কে নাই করি সবাই তো এলাকার মানুষ, সবাইকে বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে, ধরা খেলে জরিমানা হলেও আমি চেস্টা করবা না।


এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
0Shares
0Shares